• রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১০:৩৭ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
বেনাপোল বন্দরে ১৮ কোটি টাকা মূল্যের কেমিকেল চালান জব্দ মুন্সীগঞ্জে চুরি অপবাদে মারধর ঘটনায় আদালতে মামলা ছাত্রলীগের নিষেধ উপেক্ষা করে ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ দুর্নীতি লুটপাট বিরোধী সাংবাদিকতায় ভিন্নমাত্রা আম নিয়ে কষ্টগাঁথা সাংবাদিক জুয়েল খন্দকারের বিরুদ্ধে কাউন্সিলরের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা মুন্সীগঞ্জে পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও পুরস্কার বিতরণী সিদ্ধিরগঞ্জে হায়েস যোগে ফিল্মি স্টাইলে সোয়া ৪ লাখ টাকা ছিনতাই; মামলা হয়নি এখনও মুন্সীগঞ্জে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে টেঁটাবিদ্ধ সাংবাদিকসহ আহত ২০ গ্রেফতার ৯ বেনজীরের তকমা’ লাগিয়ে কালো তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠান গুলো পুলিশের কাপড়ের ঠিকাদারী নিতে মরিয়া

অবৈধ ইটভাটায় উচ্ছেদের নামে পরিবেশ অধিদপ্তরের আইওয়াস

Reporter Name / ৭৫ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪

বিশেষ প্রতিনিধিঃ নারায়ণগঞ্জের বন্দরে বেশ কিছু অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তরের মোবাইল কোর্ট। এসকল ভাটা গুলোর মাধ্যমে মারাত্মকভাবে পরিবেশ দূষণ ও স্থানীয়দের ফেলছে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার ৭ই ফেব্রুয়ারি বন্দর উপজেলার ফুনকুল, বারপাড়া, দাসেরগাঁও ও লক্ষণখোলা এলাকায় অর্ধ শতাধিক ইট ভাটার মধ্যে মাত্র উনিশটি ইট ভাটাকে অর্থ দণ্ড করা হয়।

এর মধ্যে মাত্র চারটি ইটভাটায় পরিদর্শন করেন তারা।

বাকি ১৫টি ইটভাটার মালিকদের ডেকে এনে দেন দরবার করে নামমাত্র আর্থিক জরিমানা করেন যা দেখে স্থানীদের মাঝে প্রচন্ড ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।অনেকেই বলতে শোনা গেছে পরিবেশ অধিদপ্তর মোবাইল কোর্টের নামে আইওয়াশ করছে। তাদের মুখে আরো শোনা গেছে পারিবেশ অধিদপ্তর কি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করতে এসেছেন নাকি দেন দরদাম করতে এসেছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বুধবার সকাল ১১ টায় লক্ষণ খোলা এলাকায় হাজী অটো ব্রিক ব্রিক্স এ অভিযানের নামে ভাটির কয়েকটি ইট বেকু দিয়ে ভাঙ্গে।  পরে মালিকপক্ষ চলে আসলে তাদের সাথে দেন দরবার করে দ্রুত স্থান ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে পরপর আরো তিনটি ইটভাটায় একই রকম অর্থদণ্ড করেন।সবশেষে আল মদিনা ব্রিকস এ গিয়ে পুরো মোবাইল টিম দুপুরের লাঞ্চ করেন এবং অন্যান্য ১৫ টি ইট ভাটির মালিক কে ডেকে এনে দরকষাকষি করে আর্থিক দণ্ড করেন। সব মিলিয়ে ১৯ টি ইট ভাটার মালিক কে সর্বমোট ৭০ লক্ষ টাকা জরিমানা করেন।

যদিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আশেপাশে থাকা ভাই ভাই ইট ভাটা সহ আরো ডজন খানেক ইটভাটা থাকলেও সেখানে তারা অভিযান পরিচালনা করেননি। অথচ ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রণ আইন ২০১৩ ও সংশোধনী আইন ২০১৯ অনুযায় লাইসেন্স স্থগিত ও বাতিল করন। জেলা প্রশাসন লাইসেন্সের কোন শর্ত লংঘন, এই আইনের অধীনে কোন অপরাধ সংগঠন কিংবা স্থগিত, ইট ভাটার কারনে তৎসংলগ্ন এলাকায় পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য হুমকির সম্মুখীন হলে জেলা প্রশাসন উপরোক্ত কারণে তাৎক্ষণিক ভাবে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সের কার্যকারিতা অনধিক বা ৯০ দিনের জন্য স্থগিত করে।

বদঅভিযুক্ত ইট ভাটার মালিক’কে উল্লেখিত সময়ের মধ্যে যথাযথ শুনানির পূর্বক লাইসেন্স বাতিল বা ইটভাটা কার্যক্রম বন্ধ করিবার জন্য আদেশ জারি করতে পারবেন। উল্লেখিত আইনের প্রয়োগ নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তরের মধ্যে লক্ষ্য করা যায়নি। সচেতন মহলের প্রশ্ন ? পরিবেশ দূষণের মতো দূষণের মত একটা মারাত্মক অপরাধের জন্য আর্থিক দন্ড নিয়ে কিভাবে কর্তৃপক্ষ দায় এড়াতে পারেন। তারা আরও জানান, ওই সকল এলাকায় মোবাইল কোর্ট উপস্থিত থাকাকালীন সময় সকল ইট ভাটার কার্জক্রম চালাতে দেখা গেছে।

এ ব্যাপারে কয়েকজন ইট ভাটের মালিকের সাথে কথা বরল জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ পরিবেশ অধিদপ্তর এভাবে বছরে একবার এসে মোবাইল কোর্টের নামে নগদ অর্থ জরিমানা করেন। এতে মালিকরা বিচলিত নয়, কেন না তাদের ইটের ব্যবসা চলমান রয়েছে।

অভিযান শেষে পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী তানজিদ জানান, মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ১৯ টি ভাটার মালিক কে ৭০লক্ষ টাকা নগদ জরিমানা করা হয়েছে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা কোন ইটভাটাকে ভেঙ্গে দিতে পারিনা। তবে তাদেরকে শুধু সতর্ক ও আর্থিক জরিমানা করতে পারি।

Please Share This Post In Your Social Media


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category